করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও রপ্তানি বেড়েছে তৈরি পোশাকশিল্পে

0
114

করোনাভাইরাসের আঘাত সামলে উঠছে দেশের তৈরি পোশাকশিল্প। এই খাতে পরপর দুই মাস ৩শ কোটি ডলার করে রপ্তানি হয়েছে। এতে সাত মাস পর ইতিবাচক ধারায় ফিরেছে পোশাক রপ্তানি। গত আগস্টে রপ্তানি বেড়েছে ৪৭ শতাংশ।

পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ জানিয়েছে, গত আগস্টে চলতি বছরের সর্বোচ্চ ৩৩৬  কোটি ৩৩ লাখ মার্কিন ডলারের তৈরি পোশাক রপ্তানি হয়েছে, যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৪৭ দশমিক ২৫ শতাংশ বেশি।

আগস্ট মাসের প্রথম দিন ঈদের কারণে কোনো পোশাক রপ্তানি হয়নি। পরদিন ১ কোটি ৯৪ লাখ ডলারের পোশাক রপ্তানি হয়। এরপর ধীরে ধীরে রপ্তানি বাড়ে।

যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়লে গত মার্চে একের পর এক ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিতাদেশ আসতে থাকে। এদিকে দেশেও ভাইরাসটির সংক্রমণ রোধে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করায় মাসখানেক কারখানা বন্ধ থাকে। তাতে এপ্রিলে পোশাক রপ্তানি তলানিতে গিয়ে ঠেকে। ওই মাসে ৩৭ কোটি ডলারের পোশাক রপ্তানি হয়, যা গত দুই দশকে সর্বনিম্ন। পরের মাসে রপ্তানি হয় ১২৩  কোটি ডলারের পোশাক। জুনে সেটি বেড়ে ২২৫ কোটি ডলারে ওঠে।

মার্চে পোশাকের ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিত হওয়ায় মালিকেরা আতঙ্কিত হয়ে পড়লে সরকার রপ্তানিমুখী কারখানার শ্রমিকদের মজুরি দেওয়ার জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ  ঘোষণা করে।

পোশাক রপ্তানিতে ৪৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধির বিষয়ে বিকেএমইএর প্রথম সহসভাপতি মোহাম্মদ হাতেম গণমাধ্যমকে বলেন, ক্রয়াদেশ বাতিল ও স্থগিত হওয়া পণ্য রপ্তানি হচ্ছে। তা ছাড়া মাস্ক ও পিপিই গাউনও যাচ্ছে। সব মিলিয়ে রপ্তানি বেড়েছে।

Print Friendly, PDF & Email